• ঢাকা
  • শুক্রবার:২০২৪:Jun || ২১:৫৬:৫৯
প্রকাশের সময় :
অগাস্ট ১, ২০২২,
৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট :
অগাস্ট ১, ২০২২,
৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

৩৯ বার দেখা হয়েছে ।

ভোলায় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত অর্ধশত

ভোলায় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত অর্ধশত

সারাদেশে লোডশেডিং ও জ্বালানি অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে বাধা দেওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে আবদুর রহিম নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এসময় পুলিশসহ অন্তত ৫০জন আহত হয়েছে।

রোববার (৩১ জুলাই) সকালে মহাজনপট্টি জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে দলটি। এসময় পুলিশ বাঁধা দিলে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় ভোলা সদর মডেল থানার (ওসি তদন্ত) আরমান হেসেনসহ অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ হয়েছে ২০ জন। আহতদের ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ ১২ জনকে আটক করেছে।

স্থানীয় সুত্র জানিয়েছে, রোববার সকাল ১১টার দিকে সারাদেশে লোডশেডিং ও জ্বালানি অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করছিল জেলা বিএনপি। শহরের মহাজনপট্টিতে সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপি নেতাকর্মীরা। এ সময় পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। ঘণ্টাব্যাপী চলে এ সংঘর্ষ। পরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায় একজন। বাকিরা চিকিৎসাধীন।

ভোলা সদর হাসপেতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. নাফিজা তাসমিন ঐশী বলেন, হাসপাতালে ভর্তি করার আগেই গুলিবিদ্ধ একজন মারা যান। এছাড়াও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছেন আরও ২০ জন।

ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরহাদ সরদার তোলপাড়নিউজকে জানান, বিএনপি নেতাকর্মীদের বার বার শান্তিপূরর্ণ সমাবেশ করার কথা বলার পরেও তারা সড়ক অবরোধ করে বিশৃঙ্খলা করে। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে টিয়ার সেল নিক্ষেপ করেছে। এ ঘটনায় ১৩ জন পুলিশ আহত হয়েছে। এছাড়াও বিএনপির একজন নিহত হয়েছে বলে শুনেছি। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী আলমগীর বলেন, পুলিশ বিনা কারণে শান্তিপূর্ণ মিছিলে হামলা চালিয়েছে। এতে আমাদের একজন কর্মী নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

এদিকে সংঘর্ষের পর থেকে শহরজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। জেলা বিএনপি কার্যালয়ে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।