• ঢাকা
  • শুক্রবার:২০২৪:মে || ০৪:৪৯:০৫
প্রকাশের সময় :
মে ২৬, ২০২৩,
৪:২৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট :
মে ২৬, ২০২৩,
৪:২৯ অপরাহ্ন

৩১৭ বার দেখা হয়েছে ।

নরসিংদীতে ছাত্রদলের দু’পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ আরেক নেতার মৃত্যু

নরসিংদীতে ছাত্রদলের দু’পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ আরেক নেতার মৃত্যু

অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে নরসিংদী জেলা ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ আরও এক নেতার মৃত্যু হয়েছে। তার নাম আশরাফুল ইসলাম (২০)। শুক্রবার (২৬ মে) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে একই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় ছাত্রদল নেতা সাদেকুর রহমানের (৩২।
নিহতদের মধ্যে সাদেকুর রহমান জেলা ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক। তিনি শহরের হাজীপুর ইউনিয়নের বাদুয়াচর এলাকার আলাউদ্দিনের ছেলে। আর নিহত আশরাফুল সাঠিরপাড়ার নাজমুল হকের ছেলে। তিনি শহর ছাত্রদলের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। এ ঘটনায় থানায় এখনো মামলা দায়ের হয়নি। বৃহস্পতিবার (২৫ মে) বিকেলে শহরের চিনিশপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে ছাত্রদলের নতুন কমিটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতারা। মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এসময় প্রতিপক্ষ গুলি করলে সাদেকুর ও আশরাফুলের গুলি লাগে। এ অবস্থায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সাদেকুর রহমান মারা যান এবং পরদিন সকালে আশরাফুলেরও মৃত্যু হয়।
আরও জানা গেছে, সাদেকুর ও আশরাফুল চলতি বছরের শুরুর দিকে ঘোষিত জেলা ছাত্রদলের কমিটিতে কোনো পদ পাননি। ছাত্রদল নেতা তুষার বলেন, আমরা এ দুই নেতা হত্যার বিচার চাই।
পদবঞ্চিত ছাত্রদল নেতারা জানান, গত ২৬ জানুয়ারি সিদ্দিকুর রহমান নাহিদকে সভাপতি, মাইনুদ্দিন ভূঁইয়াকে সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মেহেদী হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা ছাত্রদলের পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট (আংশিক) কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রদল।
এরপর থেকে ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা আন্দোলন চালিয়ে আসছিলেন। এরই জেরে কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুল কবীর খোকনের চিনিশপুরের বাসভবন, তথা জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে একাধিকবার হামলার ঘটনা ঘটে।
ছাত্রদলের কমিটি বাতিলের দাবিতে চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার (২৫ মে) চিনিশপুরে জেলা বিএনপির কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় মোটরসাইকেল শোডাউন করে বিক্ষোভ করছিলেন ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। এসময় অপর গ্রুপের নেতাকর্মীরা হঠাৎ তাদের ওপর হামলা করলে সংঘর্ষ বেধে যায়। এসময় পদবঞ্চিত দুই নেতা সাদেকুর ও আশরাফুলের মাথায় ও পিঠে গুলি লাগে।